প্রিকল শ্রমিকদের ১০৩ দিনের ধর্মঘট শেষ, আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে

তামিলনাড়ুর উপ-মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপের ফলে প্রিকল শ্রমিকদের ১০৩ দিনের ধর্মঘটের অবসান ঘটে। ধর্মঘটের জন্য কোন ধরনের শাস্তিমূলক পদক্ষেপ না নিতে পরিচালকমণ্ডলি সম্মত হয় এবং বেতন প্রশ্নের মীমাংসার জন্য কেবলমাত্র এআইসিসিটিইউ অনুমোদিত ইউনিয়নের সঙ্গে আলোচনা করতেও তারা রাজি হয়।

আলোচনার পর ইউনিয়ন ৩ ডিসেম্বর থেকে কাজ শুরু করার সিদ্ধান্ত নিলেও পরিচালন কর্তৃপক্ষ ৩০২ জন শ্রমিককে তাদের উত্তরাখণ্ড, মহারাষ্ট্র এবং অন্ধ্রপ্রদেশ কারখানায় অবৈধভাবে বদলি করে এর প্রত্যুত্তর দেয়। এটা সম্পূর্ণরূপেই অন্যায্য এবং অবৈধ শ্রম পদক্ষেপ এবং উপ-মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে শ্রম দপ্তর যে পরামর্শ দেয় তারও বিপরীত। শাস্তিমূলক এই পদক্ষেপের বিরুদ্ধে ৫০০-র মত শ্রমিক ও সাধারণ জনগণ ৪ ডিসেম্বর কোয়েম্বাটুরে সমবেত হন। পরিচালন কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের সংগ্রামী মনোবলকে ভেঙ্গে দেওয়া ও দমিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে। তবে, কর্তৃপক্ষ যখনই এই কৌশল নিয়েছে তখনই শ্রমিকদের লড়াকু মানসিকতা ও ঐক্যের বৃদ্ধি ঘটেছে। কর্তৃপক্ষ এবারও অবশ্যই ব্যর্থ হবে।

এআইসিসিটিইউ শাস্তিমূলক নির্দেশ প্রত্যাহার এবং শিল্পে শান্তি ফিরিয়ে আনার দাবি জানাচ্ছে। যে শ্রমিকরা মালিকদের ৫০০০ কোটি টাকার বেশি মূল্যের ব্যবসায়ী সাম্রাজ্য নির্মাণ করেছে, সেই শ্রমিকদের কষ্ট-যন্ত্রণায় পরিচালন কর্তৃপক্ষ আনন্দ খুঁজে পাচ্ছে। শ্রমিক-বিরোধী এই দৃষ্টিভঙ্গি অবশ্যই ধিক্কারযোগ্য।

খণ্ড-25
সংখ্যা-37
13-12-2018