মানবাধিকার কর্মীদের গ্রেপ্তারি প্রসঙ্গে সিপিআই(এমএল)-এর বিবৃতি

দীর্ঘ সময় ধরে গৃহবন্দী রাখার পর পুণে সেশন কোর্ট বেইল মঞ্জুর না করায় পুণের পুলিশ গ্রেপ্তার করে হেফাজতে নিল আন্দোলনকর্মী সুধা ভরদ্বাজ, অরুণ ফেরেরা ও ভার্ণন গনসালভেসকে।

সম্পূর্ণ মনগড়া অভিযোগের ভিত্তিতে ইউএপিএ-র মতো একটি দমনমূলক আইন প্রয়োগ করে এরকমভাবে গ্রেপ্তার করাকে সিপিআই(এমএল) ধিক্কার জানায়। এই প্রসঙ্গে সুপ্রীম কোর্টের ক্ষুব্ধ রায়ে পূণে পুলিশের নির্লজ্জ কার্যকলাপ আগেই উন্মোচিত হয়েছে। কীভাবে তারা ভারতীয় সংবিধানকে পদদলিত করে আন্দোলনকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যে মামলা সাজাচ্ছে তা সেই রায়ে প্রকাশ পেয়েছিল।

ছত্তিশগঢ়ের সর্বাধিক বিপন্ন-উচ্ছিন্ন আদিবাসীদের আইনী সহযোগিতার জন্য যিনি নিজেকে উৎসর্গ করেছেন সেই সুধা ভরদ্বাজের প্রতি সংহতি জ্ঞাপন করছে সিপিআই(এমএল)। সংহতি জ্ঞাপন করছে অরুণ ফেরেরা ও ভার্ণন গনসালভেসের প্রতি, যাঁরা দুজনেই একই রকম সাজানো মামলায় দীর্ঘদিন জেইলবন্দী থাকার পর ইতিমধ্যেই বেকসুর প্রমাণ হয়েছেন।

সিপিআই(এমএল) দাবি করছে যে সুধা ভরদ্বাজ, গৌতম নওলাখা, ভারওয়ারা রাও, অরুণ ফেরেরা ও ভার্ণন গনসালভেসের ওপর থেকে 'ভীমা কোরেগাঁও মামলা' প্রত্যাহার করা হোক।

আমরা দাবি করছি যে ভীমা কোরেগাঁওয়ে দলিত-বিরোধী হিংসার প্রকৃত কালপ্রিট মিলিন্দ একবোটে ও সাম্বাজী ভিডেকে, যারা দুজনেই প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ঘনিষ্ঠ, অবিলম্বে গ্রেপ্তার করা হোক।

সিপিআই(এমএল)

নয়া দিল্লী
29-Oct-2018